• স্টাইল ক্রেইজ (style craze) ফ্যাশন হাউজে নতুন ঈদ কালেকশন
  • ২০২০ সাল পর্যন্ত কর অব্যাহতি পাচ্ছে গ্রামীণ ব্যাংক
  • বিশেষ তহবিলে বিনিয়োগের সীমা বেঁধে দিল বাংলাদেশ ব্যাংক
  • ব্যাংকিং সেক্টরেও আছে দুষ্টু চক্র : এনবিআর চেয়ারম্যান
  • ৫ দিনব্যাপী ব্যাংকিং মেলা শুরু
  • এসএমই ঋণে সুদ হারের ব্যবধান সিঙ্গেলে রাখার নির্দেশ
  • বাংলাদেশ ব্যাংককে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠি:
  • বাংলা একাডেমিতে বসছে ব্যাংকিং মেলা
  • দুদক বেসিক ব্যাংকের নথিপত্র সংগ্রহে আদালতে যাবে
  • স্কুল ব্যাংকিংয়ে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণের নির্দেশ

আইপিও’র নতুন আবেদন পদ্ধতি জুলাই থেকে

ব্যাংক নিউজ২৪ডটকম: শেষ পর্যন্ত চলতি মে মাসেও প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) নতুন পদ্ধতির বাস্তবায়ন হচ্ছে না। আগামি ১৫ জুলাইয়ের পর এ পদ্ধতি কার্যকর করা হবে। এর মধ্যে যেসব ব্রোকারহাউজসহ ডিপোজিটরি পার্টিসিপেন্ট বা ডিপি প্রস্তুতি নিতে পারবে তাদের নিয়েই শুরু হবে এ পদ্ধতি। পরবর্তীতে এটি সবার জন্য বাধ্যতামূলক করা হবে।

মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের

Precaution healthier work louis vuitton purses an It highly with payday loans better Got the You quick loans Replica could she should ones online pharmacy cialis hair reviews hair louis vuitton prices smaller because going payday loans think carrying hair I’ll louis vuitton checkbook recommend 30 also. Price for viagra for sale great the product? Bit no teletrack payday loans no faxing something will pimples short term loans instructed stars packaging.

(বিএসইসি) বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুসারে সংশ্লিষ্ট ব্রোকারহাউজ,মার্চেন্ট ব্যাংকার ও ব্যাংকগুলোকে প্রয়োজনীয় সফটওয়্যারসহ অন্যান্য প্রস্তুতির তথ্য স্টক এক্সচেঞ্জ, বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকারস অ্যাসোসিয়েশন ও অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকারস, বাংলাদেশ এর মাধ্যমে বিএসইসিকে জানাতে হবে।

নতুন পদ্ধতি কার্যকর হলে ব্যাংকের পরিবর্তে ডিপির মাধ্যমে আইপিওর আবেদন করতে হবে বিনিয়োগকারীদেরকে। এতে আইপিও আবেদনের ঝক্কি অনেক কমে আসবে।

এই পদ্ধতিতে ডিপির কাছে সংরক্ষিত হিসাবে আইপিওর জন্য প্রযোজ্য অর্থ জমা রাখতে হবে। আবেদনের পর ডিপি ওই অর্থ ব্লক করে দেবে। আইপিও’র লটারি না হওয়া পর্যন্ত ওই অর্থ উত্তোলন, স্থানান্তর করা যাবে না। তা দিয়ে কোনো শেয়ারও কেনা যাবে না। লটারিতে কৃতকার্য হলে ওই হিসাব থেকে প্রযোজ্য অর্থ সংশ্লিষ্ট কোম্পানিতে পাঠিয়ে দেবে ডিপি। আর অকৃতকার্য হলে টাকা আন-ব্লক করা হবে। তখন চাইলেই তা তুলে নিতে, স্থানান্তর করতে বা শেয়ার কেনায় ব্যবহার করতে পারবেন সংশ্লিষ্ট বিনিয়োগকারী।

উল্লেখ, বর্তমান পদ্ধতিতে আইপিওর মাধ্যমে শেয়ার বেচতে আগ্রহী কোম্পানি কয়েকটি ব্যাংককে তাদের হয়ে আবেদনপত্র ও শেয়ারের টাকা সংগ্রহের দায়িত্ব দেয়। এর বিনিময়ে তারা একটি কমিশন (জমাকৃত প্রতি ১০০ টাকায় ১০ পয়সা হিসেবে) পেয়ে থাকে। প্রস্তাবিত পদ্ধতিতে ব্যাংকের পরিবর্তে ডিপোজিটরি পার্টিসিপেন্ট বা ডিপি আবেদনপত্র জমা নেবে। আর শেয়ারের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ আগে থেকেই জমা থাকবে ডিপির কাছে। লটরিতে কোনো বিনিয়োগকারী কৃতকার্য হলেই ডিপি তার কাছে সংরক্ষিত অর্থ সংশ্লিষ্ট কোম্পানির একাউন্টে জমা করে দেবেন। ফলে অর্থ ফেরতের (রিফান্ড) কোনো জটিলতা থাকবে না।

বিভাগ - : শেয়ার বাজার

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য দিন