• স্টাইল ক্রেইজ (style craze) ফ্যাশন হাউজে নতুন ঈদ কালেকশন
  • ২০২০ সাল পর্যন্ত কর অব্যাহতি পাচ্ছে গ্রামীণ ব্যাংক
  • বিশেষ তহবিলে বিনিয়োগের সীমা বেঁধে দিল বাংলাদেশ ব্যাংক
  • ব্যাংকিং সেক্টরেও আছে দুষ্টু চক্র : এনবিআর চেয়ারম্যান
  • ৫ দিনব্যাপী ব্যাংকিং মেলা শুরু
  • এসএমই ঋণে সুদ হারের ব্যবধান সিঙ্গেলে রাখার নির্দেশ
  • বাংলাদেশ ব্যাংককে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠি:
  • বাংলা একাডেমিতে বসছে ব্যাংকিং মেলা
  • দুদক বেসিক ব্যাংকের নথিপত্র সংগ্রহে আদালতে যাবে
  • স্কুল ব্যাংকিংয়ে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণের নির্দেশ

আধুনিক সফটওয়্যারই মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ করবে

govbima

ব্যাংক নিউজ২৪ডটকম: ব্যাংকিং আইন কঠোর হওয়ায় বিমা খাতের মাধ্যমে মানিলন্ডারিং করা হচ্ছে। এর প্রতিরোধে বিমা প্রতিষ্ঠানে আধুনিক সফটওয়্যার ব্যবহারের পরামর্শ দিলেন অর্থমন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সচিব ড.এম. আসলাম আলম।

বিমা ব্যবসার প্রসারে সাথে সাথে মানিলন্ডারিং এর ঝুঁকিও বৃদ্ধি পাচ্ছে উল্লেখ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেন, মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন বর্তমানে কোনো একটি দেশের অভ্যন্তরীণ সমস্যা নয়। এটি আন্তর্জাতিক সমস্যায় রূপ নিয়েছে।

রোববার রাজধানীর রূপসী বাংলা হোটেলে বিমা কোম্পানির প্রধান নির্বাহীদের নিয়ে ক্যামেলকো সম্মেলন-২০১৪ অনুষ্ঠানে তারা এসব কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেন, মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধে বাংলাদেশের আইনি ও প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোতে ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। আইন প্রণয়ন বা প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোর উন্নয়নই শেষ কথা নয়। আইনের যথাযথ প্রয়োগ এবং বাস্তবায়ন অত্যন্ত জরুরি।

তিনি বলেন, আইন প্রয়োগে রিপোর্ট প্রদানকারী সংস্থা হিসেবে বিমা প্রতিষ্ঠানগুলোর ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আইনের যথাযথ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ও বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ যৌথভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করছে। বাংলাদেশে মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধে দেশের কেন্দ্রীয় সংস্থা হিসেবে কাজ করছে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিএফআইইউ।
গভর্নর জানান, বিএফআইইউ রিপোর্ট প্রদানকারী সংস্থার রিপোর্ট পর্যালোচনা, বিশ্লেষণ, সংরক্ষণ এবং বিশেষ ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণের জন্যে সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে তথ্যাদি প্রেরণ করছে। বিভিন্ন সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান হতে মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ, পর্যালোচনা ও প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করাও বিএফআইইউ এর দায়িত্ব।

অর্থমন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সচিব ড.এম. আসলাম আলম বলেন, আমরা এখন বিশ্ব অর্থায়নের সাথে সরাসরিজড়িত। তাই বিশ্ব সমাজের কাছে আস্থা অর্জন করতে ২০০৮ সাল থেকে বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এখন আমরা সন্দেহের তালিকা থেকে মুক্ত।

তিনি বলেন, মানুষ সুযোগ পেলেই অপরাধ করে। তাই কাউকে অপরাধের সুযোগ দেওয়া যাবে না। অপরাধ নির্মূল করতে পারবো না; তবে একে সীমিত করার চেষ্টা করতে হবে। সবাই মিলে চেষ্টা করলে, দেশ থেকে অপরাধ-দুর্নীতি নির্মূল হবেই।

ব্যাংকিং আইনের বিষয়ে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সচিব বলেন, আমাদের দেশে আইন আছে; কিন্তু আইনের সঠিক প্রয়োগ নেই। আমরা একের পর এক আইন প্রণয়ন করছি। কোথাও এর প্রয়োগ হচ্ছে; আবার কোথাও এটা প্রয়োগ করা হচ্ছে না।

বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের সদস্য মো. কুদ্দুস খান বলেন, মানিলন্ডারিং বর্তমানে একটি আন্তর্জাতিক সমস্যা। এর মাধ্যমে সন্ত্রাসে অর্থায়ন বাড়ছে, যা জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে প্রসার লাভ করেছে। সুতরাং সবাইকে মানিলন্ডারিং প্রতিরোধে এগিয়ে আসতে হবে।
বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের অ্যাকচ্যুয়ারি চেয়ারম্যান এম. শেফাক আহমেদের সভাপতিত্বে এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাকেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর ও বিএফআইইউ এর প্রধান আবু হেনা মোহাম্মদ রাজী হাসান, আইডিআর-এর সদস্য সুলতান আবেদিন মোল্লা, সাধারণ বিমা করপোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রেজাউল করিম প্রমুখ।

বিভাগ - : অর্থ ও বাণিজ্য, বীমা

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য দিন