• ২০২০ সাল পর্যন্ত কর অব্যাহতি পাচ্ছে গ্রামীণ ব্যাংক
  • বিশেষ তহবিলে বিনিয়োগের সীমা বেঁধে দিল বাংলাদেশ ব্যাংক
  • ব্যাংকিং সেক্টরেও আছে দুষ্টু চক্র : এনবিআর চেয়ারম্যান
  • ৫ দিনব্যাপী ব্যাংকিং মেলা শুরু
  • এসএমই ঋণে সুদ হারের ব্যবধান সিঙ্গেলে রাখার নির্দেশ
  • বাংলাদেশ ব্যাংককে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠি:
  • বাংলা একাডেমিতে বসছে ব্যাংকিং মেলা
  • দুদক বেসিক ব্যাংকের নথিপত্র সংগ্রহে আদালতে যাবে
  • স্কুল ব্যাংকিংয়ে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণের নির্দেশ
  • সাবেক ছিটমহলবাসীদের স্যানিটেশন সুবিধা প্রদান পূবালী ব্যাংকের

দারিদ্র দূর করতে স্বাস্থ্যবীমার আওতা বাড়াচ্ছে চীন

hii
ব্যাংক নিউজ ২৪ ডট কমঃ অসুস্থ্য হয়ে চিকিৎসা খরচ চালাতে গিয়ে অনেক নাগরিকই গরীব হয়ে যায়। আর এই গরীব হয়ে যাওযা ঠেকানোর জন্য স্বাস্থ্যবীমার আওতা বাড়ানোকেই অধিকতর কার্যকর কৌশল বলে মনে করছে চীন। তাই নাগরিকদের চিকিৎসা ব্যয়ভার মেটাতে সহযোগিতার জন্য‘সংকটজনক অসুস্থ্যতা বীমা’চালু করার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সরকার।

সব ধরণের সংকটজনক অসুস্থ্যতা এ বীমার আওতায় আসবে।শহর এবং গ্রাম এলাকার অধিবাসী সকলেই এ বীমা সুবিধা পাবে।‘সংকটজনক অসুস্থ্যতা বীমা’২০১৫ সালের শেষ নাগাদ পরীক্ষামূলকভাবে চালু হবে। সরকারের ওয়েবসাইটে এ খবর জানিয়েছে দেশটির স্টেট কাউন্সিল।
মন্ত্রিপরিষদ তথা স্টেট কাউন্সিল বলছে‘অসুস্থ্যতার ফলস্বরূপ দারিদ্র’কার্যকরভাবে দূর করা এবং একটি শক্তিশালী সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা গড়ে তোলাই হচ্ছে দেশটির স্বাস্থ্যবীমার এ আওতা বাড়ানোর মূল লক্ষ্য,।
স্টেট কাউন্সিল জানায়, পলিসিধারী রোগীর চিকিৎসা খরচের অর্ধেক এ বীমার আওতায় আসবে। ক্রমান্বয়ে এ হার আরও বাড়বে।
এ বীমা কাভারেজের মাধ্যমে জাতীয় মৌলিক স্বাস্থ্য বীমার আওতায় আসা শহর এবং পল্লী এলাকার সকলেই সুবিধা পাবে। মৌলিক স্বাস্থ্যবীমার পলিসিধারী কোন রোগীর চিকিৎসা খরচ তার বীমা কাভারেজের বেশি হয়ে গেলে‘সংকটজনক অসুস্থ্যতা বীমা’তা পরিশোধ করে দিবে।
দেশটিতে চালু থাকা স্বাস্থ্যবীমা সম্পর্কে নাগরিকদের ক্ষোভের কারণে বীমা ব্যবস্থায় এ সংস্কার আনছে সরকার।

চিকিৎসা খরচের তুলনায় চলমান বীমা কভারেজ অত্যন্ত কম হওয়ায় চীনের মূলভূখণ্ডের অধিবাসীদের দীর্ঘদিন থেকেই ক্ষোভ ছিল। এর কারণ কম টাকার বীমা কাভারেজ মোটা অংকের চিকিৎসা ব্যয় মেটাতে কোন কাজেই আসছিল না। বীমা থাকা সত্বেও চিকিৎসা খরচ দিতে গিয়ে তারা ফতুর হয়ে যাচ্ছে।ক্যান্সার বা ডায়াবেটিসের মতো মারাত্মক রোগের চিকিৎসা খরচ চালাতে গিয়ে গৃহস্থালী সম্পদ বিক্রি করে দেউলিয়া হয়ে যেতে হয়, এমন অভিযোগ ছিল অনেকের।
২০১৭ সাল নাগাদ দেশের পুরো স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থাপনা এ বীমা ব্যবস্থার সঙ্গে সমণ্বয় করা হবে। বীমা পলিসি কিনতে অসমর্থদের আর্থিক সহায়তা দেয়া এবং স্বাস্থ্য বীমার আওতায় না আসা লোকদের স্বাস্থ্যসেবায় ভর্তূকি দেয়ার লক্ষ্যে ২০০৮ সালে চালু করা ‘চিকিৎসা সহায়তা ব্যবস্থাপনা’র মতো অন্যান্য প্রকল্প যুক্ত হবে এর সঙ্গে।
তিয়ারজিনের নানকাই বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিষয়ের এক গবেষক বলেন, মারাত্মক রোগ চিকিৎসা কারণে যে বিল আসবে তার ৭০ ভাগেরও বেশি হয়তো পরিশোধ করতে হতে পারে এ বীমা কাভারেজের।

বিভাগ - : বীমা

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য দিন