• স্টাইল ক্রেইজ (style craze) ফ্যাশন হাউজে নতুন ঈদ কালেকশন
  • ২০২০ সাল পর্যন্ত কর অব্যাহতি পাচ্ছে গ্রামীণ ব্যাংক
  • বিশেষ তহবিলে বিনিয়োগের সীমা বেঁধে দিল বাংলাদেশ ব্যাংক
  • ব্যাংকিং সেক্টরেও আছে দুষ্টু চক্র : এনবিআর চেয়ারম্যান
  • ৫ দিনব্যাপী ব্যাংকিং মেলা শুরু
  • এসএমই ঋণে সুদ হারের ব্যবধান সিঙ্গেলে রাখার নির্দেশ
  • বাংলাদেশ ব্যাংককে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠি:
  • বাংলা একাডেমিতে বসছে ব্যাংকিং মেলা
  • দুদক বেসিক ব্যাংকের নথিপত্র সংগ্রহে আদালতে যাবে
  • স্কুল ব্যাংকিংয়ে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণের নির্দেশ

দেশের ব্যাংকগুলোতে ৬০% একাউন্টে লেনদেন নেই

bangladeshbank
ব্যাংক নিউজ ২৪ ডট কমঃ দেশের ব্যাংকগুলোতে ৬০% একাউন্টে লেনদেন নেই। ফলে এসব হিসাব টানতে অনেকটা হিমশিম খাচ্ছে ব্যাংকগুলো।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাম্প্রতিক এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, চলতি বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত দেশের ব্যাংকগুলোতে হিসাবের সর্বমোট সংখ্যা ৬ কোটি ৬৬ লাখ ৮২ হাজার ৯৭৩টি। এই হিসাবে জমার পরিমাণ ৬ লাখ ৪৯ হাজার ৪৪০ কোটি ২ লাখ টাকা। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকা জমা রয়েছে এমন হিসাবের সংখ্যা ৩ কোটি ৮২ লাখ ১৭ হাজার ৪৫৩টি; যা মোট হিসাবের প্রায় ৬০ শতাংশ। আর এ ৬০ শতাংশ হিসাবে জমা রয়েছে মাত্র ২ হাজার ১১৮ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। হিসাব অনুযায়ী গড়ে প্রতিটি হিসাবে জমা মাত্র ৫৫৪ টাকা; যা মোট আমানতের ০ দশমিক ৩২ শতাংশ।

তথ্যানুযায়ী, বাকি ৪০ শতাংশ হিসাবে জমা রয়েছে ৬ লাখ ৪৭ হাজার ৩২১ কোটি ৩ লাখ টাকা; যা মোট জমার ৯৯ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

পরিসংখ্যানে আরও জানানো হয়, আমানত সংরক্ষণে খোলা হিসাবের মধ্যে সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের হিসাব সংখ্যা ২ লাখ ১০ হাজার ৩৬৯টি। কৃষক, শ্রমিক, মজুর, দুস্থ, মুক্তিযোদ্ধাসহ বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ভাতা বা অনুদান দেওয়ার জন্যই এই হিসাব খোলা হয়েছে। এতে জমা আছে ১২ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। গড়ে প্রতিটি হিসাবে জমা মাত্র ৫৯৩ টাকা করে।

ক্ষুদ্র হিসাবের মধ্যে বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের হিসাব সংখ্যা ৩ কোটি ৮০ লাখ ৭ হাজার ৮৪ টি; এই হিসাবের অধিকাংশ বিভিন্ন অনুদান গ্রহণের জন্য। অনুদান গ্রহণ ছাড়া এই হিসাবে আর কোনো ধরনের লেনদেন হয় না। এতে জমা আছে ২ হাজার ১০৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা। গড়ে প্রতিটি হিসাবে জমার পরিমাণ ৫৫৪ টাকা।বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য মতে, এই ক্ষুদ্র হিসাবের মধ্যে ১০ টাকা ও ১০০ টাকার হিসাব সংখ্যা ১ কোটি ৪০ লাখ ৪৪ হাজার; যা মোট ক্ষুদ্র হিসাবের ৩৬ দশমিক ৭৪ শতাংশ। শুধু কৃষকদের নামে ১০ টাকার পুঞ্জীভূত হিসাব রয়েছে প্রায় ৯৭ লাখ ১৭ হাজার। সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় ভাতাভোগীদের নতুন ২০ হাজার ৪৪৬টি এবং মুক্তিযোদ্ধা ও সরকারের ক্ষুদ্র জীবন বিমা গ্রহীতাসহ অন্যদের নামে খোলা হয়েছে ৭৫১টি ও ২০২টি হিসাব।

ব্যাংক কর্মকর্তারা জানান, আর্থিক অন্তর্ভুক্তির কথা বলে শুধু সরকারের বিভিন্ন ধরনের সুবিধাভোগীদের ব্যাংকে হিসাব খুলতে বাধ্য করা হচ্ছে। অস্বচ্ছল এই সব মানুষ হিসাব খুলতে বিড়ম্বনারও শিকার হচ্ছেন। এছাড়া এতে বোঝা বাড়ছে ব্যাংকের ঘাড়ে। এই হিসাব থেকে তারা কোনো ধরনের আয় করতে পারছে না। তারপরও বছরের পর বছর এই হিসাব বহন করতে হচ্ছে। কেননা হিসাব খুলতে ও চালু রাখতে বার্ষিক কোনো চার্জ লাগে না এই সব ছোট ছোট হিসাবের ক্ষেত্রে। কিন্তু বন্ধ করতে ঠিকই চার্জ দিতে হয়। তাই প্রয়োজন শেষে লেনদেন বন্ধ হয়ে গেলেও কোনো গ্রাহক এসে হিসাব বন্ধ (ক্লোজ) করেন না।

বিভাগ - : অর্থ ও বাণিজ্য, ব্যাংক

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য দিন