• ২০২০ সাল পর্যন্ত কর অব্যাহতি পাচ্ছে গ্রামীণ ব্যাংক
  • বিশেষ তহবিলে বিনিয়োগের সীমা বেঁধে দিল বাংলাদেশ ব্যাংক
  • ব্যাংকিং সেক্টরেও আছে দুষ্টু চক্র : এনবিআর চেয়ারম্যান
  • ৫ দিনব্যাপী ব্যাংকিং মেলা শুরু
  • এসএমই ঋণে সুদ হারের ব্যবধান সিঙ্গেলে রাখার নির্দেশ
  • বাংলাদেশ ব্যাংককে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠি:
  • বাংলা একাডেমিতে বসছে ব্যাংকিং মেলা
  • দুদক বেসিক ব্যাংকের নথিপত্র সংগ্রহে আদালতে যাবে
  • স্কুল ব্যাংকিংয়ে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণের নির্দেশ
  • সাবেক ছিটমহলবাসীদের স্যানিটেশন সুবিধা প্রদান পূবালী ব্যাংকের

বীমা দাবি আদায়ে গ্রাহকের সহায়ক হবে বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটি

IDRA1
ব্যাংক নিউজ ২৪ ডট কমঃ গ্রাহকের বীমা দাবি আদায়ে সৃষ্ট বিরোধ দূর করতে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটি। এছাড়া শুধু বীমা কোম্পানি নয, বীমা খাতের ইতিবাচক ইমেজ সৃষ্টিতেও এ কমিটি গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। নবগঠিত এই কমিটির আনুষ্ঠানিক যাত্রা উপলক্ষ্যে মঙ্গলবার আয়োজিত এক সভায় এসব কথা বলেন বক্তারা।

বীমা আইন-২০১০ এর ৭৩ ধারা অনুসারে বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটি গঠন করা হয়েছে। আইন অনুযায়ী জীবন বীমার ক্ষেত্রে ২৫ হাজার টাকার ওপরে এবং সাধারণ বীমার ক্ষেত্রে ৫ লাখ টাকার ওপরে বীমা দাবির বিরোধ নিষ্পত্তি করবে এ কমিটি। সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি মো. আরায়েস উদ্দিনকে এ কমিটির চেয়ারম্যান করা হয়েছে। সদস্য হিসেবে আছেন সাধারণ বীমা কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান ড. সোহরাব উদ্দিন, আইডিআরএ সদস্য মো: কুদ্দুস খান ও মাইক্রোফাইন্যান্স ইনস্টিটিউটের নির্বাহি পরিচালক অর্থনীতিবিদ এম.এ. বাকী খলীলী।
বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ) চেয়ারম্যান এম শেফাক আহমেদ একচ্যুয়ারির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নবগঠিত বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটির চেয়ারম্যান ও সদস্যগণ, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স এসোসিয়েশন (বিআইএ) প্রেসিডেন্ট শেখ কবির হোসেন ও ভাইস প্রেসিডেন্ট আহসানুল ইসলাম টিটু। এছাড়া জীবন বীমা কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান জনাব এম. শামসুল আলম ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব পরিক্ষীত দত্ত চৌধুরী, সাধারণ বীমা কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব মোঃ রেজাউল করিম, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স এসোসিয়েশন, বাংলাদেশ সার্ভেয়ার এসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স অ্যাকাডেমীর (বিআইএ) প্রতিনিধিরা উস্থিত ছিলেন।
বীমা দাবি আদায় নিয়ে গ্রাহক ও বীমাকারী কোম্পানির মধ্যে কোনো জটিলতার সৃষ্টি হলে একজন গ্রাহক বীমা দাবি আদায়ে এ কমিটির কাছে নির্ধারিত পদ্ধতিতে আবেদন করতে পারবে।
এক্ষেত্রে লাইফ ইন্স্যুরেন্সের একজন বীমা গ্রাহকের বীমা দাবির পরিমাণ ২৫ হাজার টাকার ওপরে হলে এবং ননলাইফ বীমা খাতের গ্রাহক ৫ লাখ টাকার বেশি দাবি আদায়ে বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটিতে আবেদন করতে পারবে। তবে প্রবিধানমালা অনুযায়ী আবেদনের সাথে অবশ্যই আবেদনকারীকে বিরোধীয় বীমা দাবির ২ শতাংশ পরিমাণ ফি বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের নামে পে অর্ডার/ডিডি এর মাধ্যমে জমা দিতে হবে। আবেদনের প্রেক্ষিতে বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটি যথাযথ কার্যক্রম গ্রহণ করে উভয়পক্ষের শুনানি শেষে বিরোধের নিষ্পত্তি করবে। তবে কমিটির আদেশে কোন পক্ষ সংক্ষুব্ধ হলে উক্ত আদেশের ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে উপযুক্ত
আদালতের শরণাপন্ন হতে পারবেন।
অনুষ্ঠানে এম শেফাক আহমেদ বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটি গঠনের পটভূমি তুলে ধরে বলেন, আইডিআরএ গঠনের পর থেকে বীমা খাতকে আরও সুসংগঠিত করার কাজ করে যাচ্ছে সরকার। বীমা আইনের যথাযথ বাস্তবায়নের মাধ্যমে গ্রাহকদের স্বার্থ রক্ষা করা সম্ভব।আইডিআরএ বীমা শিল্পে একটি স্থিতিশীল অবস্থা আনার জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে।
তিনি বলেন, আইডিআরএ শুধু কোম্পানিগুলোর জন্য নয় বীমা গ্রহীতা ও সর্বসাধারণের স্বার্থ রক্ষার জন্য অভিভাবক হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে। বীমার প্রসার ও প্রচারের মাধ্যমে বীমার সুবিধা সকলের ঘরে ঘরে পৌঁছে দেয়ার জন্যই আইডিআরএ যথাযথ ভূমিকা পালন করছে। এর ধারাবাহিকতাই বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটি গঠন ।
বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটির চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি মো. আরায়েস উদ্দিন বলেন, আমার ৪৬ বছরের বিচারক জীবনের অভিজ্ঞতার আলোকে আমি কাজ করে যাবো। আমি মাথা উঁচু করেই কাজ করে যেতে চাই। আমি দেশের সাধারণ মানুষের সেবা করতে কাজ করে যাব।
তিনি বলেন, আমি এখানে টাকার জন্য আসিনি। আমার এ ধরনের কোনো রেকর্ডও নেই।
কমিটির সদস্য ড. সোহরাব উদ্দিন বলেন, ১৯৩৮ সালের বীমা আইনে এ ধরণের কোনো বিধান ছিল না। নতুন বীমা আইন ২০১০ এ সরকার এ বিধান সংযোজন করেন। এর উদ্দেশ্য গ্রাহকের স্বার্থ রক্ষা। বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটি এ লক্ষেই কাজ করবে বলে আমরা আশা করছি।
অপর সদস্য মো: কুদ্দুস খান বলেন, বীমা আইন ২০১০ এ বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য কমিটি গঠনের বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হয়। আইন অনুযায়ী জীবন বীমার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকা ও সাধারণ বীমার ক্ষেত্রে ৫ লাখ টাকার বিরোধ নিষ্পত্তি করতে পারবে আইডিআরএ। এর বেশি হলে তা বীমা বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটির মাধ্যমে করতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিআইএ সহ-সভাপতি আহসানুল ইসলাম টিটু বলেন, এ কমিটি বীমা শিল্পের উন্নয়নের জন্য ভূমিকা রাখবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। বীমা কোম্পানিগুলো নিয়ে মাঠে যে নেতিবাচক প্রচারণা আছে এ কমিটির কার্যক্রমের মাধ্যমে তা দূর হবে। অন্তত: পলিসি হোল্ডারদের মধ্যে যে আস্থার সংকট আছে তা অনেকটা কমবে বলে মনে করেন তিনি।
তিনি আরো বলেন, বিরোধ নিষ্পত্তির কর্মকান্ড কিভাবে পরিচালিত হবে তা স্পষ্ট করা প্রয়োজন। একজন গ্রাহক কোন প্রক্রিয়ায় দাবি আদায়ের জন্য আবেদন করবেন, কোন পদ্ধতিতে বিরোধ নিস্পত্তি করা হবে তা স্পষ্ট করা প্রয়োজন। এছাড়া কমিটির বিভিন্ন কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য এসোসিয়েশন ও বীমা বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আলোচনা করার প্রস্তাব করেন তিনি।
সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন গ্রীণ ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির কনসালটেন্ট জনাব এ. এস. এ. মুইজ, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স এসোসিয়েশন (বিআইএ) এর প্রেসিডেন্ট জনাব শেখ কবির হোসেন, বিআইএ এর ভাইস প্রেসিডেন্ট জনাব আহসানুল ইসলাম টিটু ও বিআইএ এর সেক্রেটারি জনাব মোঃ নুরুল ইসলাম, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স একাডেমি এর চিফ ফেকাল্টি মেম্বার জনাব এস. এম ইব্রাহিম হোসেন এবং বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স সার্ভেয়ার্স এসোসিয়েশন এর সভাপতি জনাব এম. আতিক উল্লাহ ভূঁইয়া উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

বিভাগ - : বীমা

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য দিন